লামায় কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প

বান্দরবানের লামায় কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দিনব্যাপী বিশেষ ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের মাধ্যমে দুর্গম ও প্রন্তত্য এলাকার বঞ্চিত মানুষকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে। প্রয়াত চিকিৎসক ডা. দেওয়ান মোহাম্মদ রুবেলের স্মরণে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন আয়োজিত শুক্রবার (৪ জানুয়ারী) সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই চিকিৎসাসেবা ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করেন বিভিন্ন বিভাগের মোট ১১৯ জন চিকিৎসক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যালিয়েটিভ কেয়ার বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ডা. নিজামউদ্দিন আহমেদ ক্যাম্পটির নেতৃত্ব প্রদান করেন।
স্থানীয় অধিবাসীরা ছাড়াও লামা, আলীকদম, টংকাবতি, গজালিয়া, আজিজনগর, উখিয়া, চুনতি, চকরিয়া, লোহাগাড়া, বান্দরবান সহ দূরদূরান্ত থেকে নানান জাতিগোষ্ঠীর ৬ সহ¯্রাধীক পুরুষ, মহিলা এবং শিশু বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেন। রোগীদের মাঝে বিনামূল্যে ট্যাবলেট, ক্যাপসুল, সিরাপ, সাসপেনসন ক্রিম, অয়েন্টমেন্ট-সহ ১ লক্ষ ৬৪ হাজার ৬৪৩ ইউনিট ওষুধ প্রদান করা হয়। ক্যাম্পের দিন ভোরবেলা থেকেই রোগীরা কোয়ান্টামম চত্বরে এসে ভিড় জমাতে শুরু করেন। মূল ক্যাম্পটি সকাল ১০টায় শুরু হয়েছে। তবে কোন রোগী কোন বিভাগে সেবা নিবেন, তা নির্বাচনের বিষয়টি সকাল ৮টা থেকেই শুরু করা হয়।
কোয়ান্টামম চিকিৎসাসেবা কেন্দ্র শাফিয়ানে অনুষ্ঠিত এ মেডিকেল ক্যাম্পে মেডিসিন, সার্জারি, গাইনি, নিউরোসার্জারি, চর্ম, নাক-কান-গলা, শিশুরোগ, হৃদরোগ, ইউরোলজি, অর্থোপেডিকস, চক্ষুরোগ, দন্তরোগ, চর্মরোগ সহ মোট ১৩টি ভিন্ন ভিন্ন বিভাগে রোগীদের বিশেষায়িত চিকিৎসাসেবা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়। তাৎক্ষণিক রোগ নির্ণয়ের জন্যে বিভিন্ন স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে রক্ত ও মূত্র পরীক্ষা, ইসিজি, আল্ট্রাসনোগ্রাম, চক্ষু পরীক্ষা ও দন্ত চিকিৎসা ইত্যাদি। এ সেবা পেয়েছেন ৭ শতাধিক রোগী। এছাড়া রোগমুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়।
উলেখ্য, স্থানীয় অধিবাসীদের সুবিধার্থে শাফিয়ান চিকিৎসা সেবায় এবার কেন্দ্রের আরেকটি ভবন নির্মিত হয়েছে। বর্তমানে দুটি ভবন মিলিয়ে প্রতিদিন শাফিয়ানে প্রশিক্ষিত প্যারামেডিকস দ্বারা এবং প্রতি শুক্রবার একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ প্রদান করা হয়।

About অনলাইন নিউজ ডেস্ক, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান

Check Also

১৬ নয়, ৪ স্তরেই মিলবে ভবন নকশার অনুমোদন

রাজউকের মতো দেশের অন্যান্য উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের এলাকায় ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে এখন থেকে মাত্র চার স্তরের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *